লেখকের পরিভ্রমণ[লেখকের জন্য পৌরাণিক কাঠামো] মেন্টর: ৩ -ক্রিস্টোফার ভগ্লার

লেখকের পরিভ্রমণ[লেখকের জন্য পৌরাণিক কাঠামো] মেন্টর: ১ -ক্রিস্টোফার ভগ্লার
লেখকের পরিভ্রমণ[লেখকের জন্য পৌরাণিক কাঠামো] মেন্টর: ২ -ক্রিস্টোফার ভগ্লার

বিভিন্ন ধরণের মেন্টর

নায়কদের মতই দায়িত্ব পালনে ইচ্ছুক বা অনিচ্ছুক মেন্টর রয়েছে। অনিচ্ছা সত্ত্বেও কখনো কখনো তারা শিক্ষা দেয়। অন্যক্ষেত্রে তারা তাদের খারাপ দৃষ্টান্তের দ্বারা শিক্ষা দেয়। দুর্বল এবং বিয়োগান্তক ত্রুটিগুণসম্পন্ন মেন্টরের পরিণতি সমধরণের ত্রুটি-বিচ্যুতির ফাঁদ এড়িয়ে চলতে উৎসাহিত করে। মেন্টরের এই ধরণের মৌলরুপ আদর্শ (আর্কিটাইপ) নায়কের অন্ধকার বা না-বোধক দিককে প্রকাশ করে।

অন্ধকাররুপের মেন্টররা

কোন নির্দিষ্ট গল্পে মেন্টর আর্কিটাইপের ক্ষমতা শ্রোতা-দর্শককে ভুলপথে ধাবিত করতে ব্যবহৃত হতে পারে। রোমাঞ্চকর গল্প বা থ্রিলারে মেন্টরের মুখোশ কখনো কখনো ফাঁদ হয়ে নায়ককে বিপদের দিকে প্রলুব্ধ করে। অথবা দি পাবলিক এনিমি(The Public Enemy) বা গুডফেলাস (Goodfellas) ধরণের অনায়কোচিত (anti-heroic) সন্ত্রাসী চক্রাবৃত (gangster) চলচ্চিত্র, যেখানে প্রত্যেকটি গতানুগতিক নায়কসুলভ মূল্যবোধের মাঝে বৈপরীত্য আছে, সেখানে একজন অ-মেন্টর (anti-mentor) অপরাধ এবং ধ্বংসের পথে অ-নায়ককে (anti-hero) পরিচালিত করতে উপস্থিত হয়।

এই ধরণের আর্কিটাইপ ক্ষমতার আরেক বৈপরীত্য হলো বিশেষ ধরণের প্রবেশদ্বারের অভিভাবক (Threshold Guardian, পরবর্তীতে এই আর্কিটাইপকে নিয়ে আলোচনা আসছে। রোমান্সিং দা স্টোন (Romancing the Stone)-এ যার উদাহরণ রয়েছে, যেখানে জোন ওয়াইল্ডার (Joan Wilder)-এর ডাইনীসুলভ কর্কশ স্বরের প্রতিনিধি বা এজেন্ট, যার উপস্থিতি পুরোদস্তুরের একজন মেন্টর, যে জোনের পেশার বিকাশে নির্দেশনা দিচ্ছে এবং তাকে পুরুষ সম্পর্কে পরামর্শ দিচ্ছে। কিন্তু যখন জোন রোমাঞ্চকর অভিযানের প্রারম্ভ প্রান্ত প্রায় অতিক্রম করতে যাবে, তার প্রতিনিধি তাকে থামাতে উদ্যত হয়; বিপদ সম্পর্কে তাকে সতর্ক করে এবং জোনের মনে সন্দেহের সৃষ্টি করে। সত্যিকারের মেন্টরের মতো জোনকে উদ্বুদ্ধ করার পরিবর্তে ম প্রতিনিধিটি নায়কের পথে একটা বাধা হয়ে দাঁড়ায়। জীবনের ক্ষেত্রে মনস্তাত্ত্বিকভাবে এটা সত্য। জীবনে উন্নতির পরবর্তী পর্যায়ে উপনীত হবার স্বার্থেই প্রায়ই আমাদের সর্বোৎকৃষ্ট শিক্ষকদের অবশ্যি অতিক্রম করতে হয় বা ছাড়িয়ে যেতে হয়।

পতিত মেন্টর

কিছু মেন্টর নিজেরাই তাদের নায়কের পরিভ্রমণ পর্যায়ে রয়েছে। তারা হয়তো তাদের দায়িত্ব পালনে আত্মু-বিশ্বাসের সংকটের মুখোমুখি হয়েছে। খুব সম্ভবতঃ তারা তাদের বয়োবৃদ্ধি হওয়ার সমস্যাকে মোকাবিলা করছে, এবং মৃত্যুর দ্বারপ্রান্তে উপনীত হচ্ছে। অথবা নায়কের পথ হতে সরে গেছে। নায়কের প্রয়োজন মেন্টরের আর একবার উঠে দাঁড়ানোর। সে যে তা করতে পারবে এই ব্যাপারে মারাত্মক সন্দেহ আছে। এ লিগ অফ দিয়ার ওউন (A League of Their Own)-এ টম হ্যানক্সস (Tom Hanks) একজন প্রাক্তন নায়ক খেলোয়াড়ে অভিনয় করে। আহত হওয়ার কারণে তাকে মাঠের বাইরে বসে থাকতে হয় এবং খারাপভাবে মেন্টরত্বের দিকে তার রুপান্তর ঘটে। তার মর্যাদা ও সন্মানের পতন ঘটে এবং দর্শক-শ্রোতা তাকে শিরদাঁড়া করে দাঁড়ানোর জন্য সর্বোত সমর্থন জোগাচ্ছে। সে সাথে নায়ককে সহায়তা করতে তার কাজকে সন্মান জানাচ্ছে। এই ধরণের মেন্টর তার নিজের মুক্তির পথে নায়কের যাত্রাপথের সব পর্যায় অতিক্রমণের ভেতর দিয়ে যেতের পারে।

ধারাবাহিক মেন্টররা

মেন্টররা দায়িত্ব নির্দিষ্টকরণে উপকারী ভূমিকা পালন করে এবং গল্পের গতিশীলতা বজায় রাখে। গল্পের ধারাবাহিকতার স্বার্থে তারা প্রায়ই লেখায় নির্বাচিত হোন। পুনরাবর্তিত মেন্টররা হলেন দি ম্যান ফ্রম ইউ. এন. সি. এল. ই. (The Man from U.N.C.L.E.)-র মিঃ ওয়াভারলি (Mr. Waverly), বন্ড ছায়াছবির (Bond pictures)-র “এম” (“M”), গেট স্মার্ট (Get Smart)-এর দি চীফ (The Chief), দি ওয়াল্টন্স (The Waltons)-এ পিতামহ-পিতামহী/মাতামহ-মাতামহী হিসেবে উইল গীর (Will Geer), এবং ইলেন করবি (Ellen Corby), ব্যাটম্যান (Batman)-এ আলফ্রেড (Alfred), পেট্রিয়ট গেমস (Patriot Games) এবং দি হান্ট ফর রেড অক্টোবর (The Hunt for Red October)-এ জেমস আর্ল জোন্স (James Earl Jones)-এর সিআইএ (CIA) কর্মকর্তা।

বহুবিধ মেন্টররা

বিশেষ কিছু দক্ষতা অর্জন করতে একজন নায়ক ধারাবাহিকভাবে কিছু মেন্টর দ্বারা প্রশিক্ষিত হতে পারে। সবচেয়ে ভাল প্রশিক্ষিত নায়কদের মধ্যে হারকিউলেস (Hercules) নিশ্চিতভাবে একজন, যে সুদক্ষ মেন্টরদের দ্বারা প্রশিক্ষিত হয়েছিল মল্লযুদ্ধে, তীর নিক্ষেপে, ঘোড়া চালনায়, অস্ত্র চালনায়, কুস্তিতে, জ্ঞানে, সদ্গুণে, গানে, মিউজিকে। সে এমনকি কোন এক মেন্টর থেকে রথ চালনায় প্রশিক্ষণ নিয়েছিল। আমাদের সকলে কিছু ধারাবাহিক মেন্টরদের কাছ থেকে শিখছি, যারা হলো পিতা-মাতা, বড় ভাই-বোনরা, বন্ধুরা, প্রেমিক/প্রেমিকারা, শিক্ষকরা, কাজের কর্তাব্যক্তি ও সহকর্মীরা, চিকিৎসকরা এবং অন্য আদর্শরা।

বহুবিধ মেন্টরদের প্রয়োজন হতে পারে আর্কিটাইপের বিভিন্ন কার্যকারণ প্রকাশের জন্য। জেমস বন্ডের চলচ্চিত্রগুলোতে, 007 সব সময় তার নিজস্ব গন্ডিতে ফিরে আসে তার প্রধান জ্ঞানী বৃদ্ধ লোকের কাছে পরামর্শের জন্য। গুপ্তচরদের প্রধান (spymaster) “এম” (“M”) তাকে দায়িত্ব ও উপদেশ দেয় এবং সতর্ক করে। কিন্তু মেন্টরের নায়ককে উপহার দেয়ার কর্মকান্ড অস্ত্র-শস্ত্রের প্রধান “কিউ” (Q)-র কাছে অর্পণ করা হয়। মেন্টরের অন্য একটি দিকের প্রতিনিধিত্বকারী মিস মনিপেনি (Miss Moneypenny) নির্দিষ্ট পরিমাণের আবেগী সমর্থন, সে সাথে উপদেশ এবং গুরুত্ববহ তথ্য সরবরাহ করে গেছেন।

হাস্যোদ্রেককর মেন্টর

রোমান্টিক কমেডিতে এক বিশেষ ধরণের মেন্টর দৃষ্ট হয়। এই ব্যক্তিটি সাধারণতঃ নায়কের সমলিঙ্গের বন্ধু অথবা প্রায়শঃই অফিসের সহকর্মী হয়ে থাকে। সে নায়ককে প্রেম সম্পর্কে কিছু উপদেশ দিয়ে থাকে: হারানো প্রেমের বেদনা ভুলতে নায়ককে তার সাথে ঘুরতে নিয়ে যায়। এমন ভাব করে বোঝায় যে, নায়িকার সাথে এমন কোন সম্পর্ক আছে, যাতে নায়িকার স্বামীর মাঝে ঈর্ষাবোধ তৈরি হয়। প্রেমাস্পদের পছন্দগুলোর প্রতি আগ্রহের ভাব দেখায়। প্রেমাস্পদকে ফুল উপহার বা তোষামোদ করে। অথবা কখনো কখনো আরো আক্রমনাত্মক ভাব দেখায়। উপদেশগুলো নায়ককে প্রায় মনে হয় অস্থায়ী বিপর্যয়ের দিকে ঠেলে দেয়। কিন্তু পরিশেষে এটা সর্বদা সঠিক হয়ে উঠে। এই বৈশিষ্ট্যসমূহ হাস্যরসাত্মক (comedy) রোমান্টিক নাটকের। বিশেষ করে ওইগুলো ১৯৫০-সের যখন পিলো টক (Pillow Talk) এবং লাভার কাম ব্যাক (Lover Come Back) মত চলচ্চিত্রগুলোতে থেলমা রিটার (Thelma Ritter) এবং টনি র‍্যান্ডেল (Tony Randall)-এর মত চলচ্চিত্রাভিনেতাদের যথেষ্ট কাজ করার ছিল। যারা মেন্টরের রসময় বুদ্ধিদীপ্ত শ্লেষাত্মক রুপের সুন্দর চিত্রণ সমাধা করতো।

শামান হিসেবে মেন্টর

গল্পে মেন্টরের ধারণা শামানের ধারণার সাথে খোলাখুলিভাবে জড়িত। শামান হলো উপজাতীয় সংস্কৃতিতে নিরাময়কারী বা উপশমকারী, চিকিৎসক পুরুষ বা মহিলা। যেমন, মেন্টর নায়ককে বিশেষ পৃথিবী (Special World)-র পথে পরিচালিত করে, শামান তেমনি তাদের জনগণকে জীবনের পথে পরিচালিত করে। তারা স্বপ্নে এবং দর্শনে অন্য জগতে ভ্রমণ করে এবং গল্প নিয়ে ফিরে তাদের উপজাতির উপশমে। প্রায়শঃই একজন মেন্টরের কর্মকান্ড হলো অন্য জগতের অনুসন্ধানকল্পে নায়ককে পরিচালিত করার একটা দর্শন অর্জনে সাহায্য করা।

Advertisements

তথ্য কণিকা শামান সাত্ত্বিক
নিঃশব্দের মাঝে গড়ে উঠা শব্দে ডুবি ধ্যাণ মৌণতায়।

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: