লেখকের পরিভ্রমণ[লেখকের জন্য পৌরাণিক কাঠামো] মেন্টর:১ -ক্রিস্টোফার ভগ্লার

    বিজ্ঞ পরামর্শদাতা (মেন্টর): জ্ঞানী বৃদ্ধ পুরুষ বা নারী

বল (শক্তি) তোমার সাথে থাকুক!
– জর্জ লুকাস (George Lucas)-এর স্টার ওয়ার্স (Star Wars) থেকে

একটি মৌল আদর্শরুপ (আর্কিটাইপ) প্রায় স্বপ্নে, পুরাণে এবং গল্পে পাওয়া যায়, তাহলো বিজ্ঞ পরামর্শদাতা বা মেন্টর। সাধারণতঃ একটা ইতিবাচক চরিত্র যে নায়ককে শিক্ষা ও সহযোগীতা দিয়ে প্রস্তুত করে। ক্যাম্পবেল এই শক্তিটির নাম দিয়েছেন জ্ঞানী বৃদ্ধ পুরুষ বা জ্ঞানী বৃদ্ধ নারী। এই মৌল আদর্শরুপ ঐ সকল চরিত্রগুলোতে প্রকাশ পেয়েছে যারা নায়ককে শেখায়, রক্ষা করে এবং উপহার দেয়। এমন যে, ঈশ্বর আদমের সাথে হাঁটছে ইডেনের বাগানে, মারলিন (Merlin) কিং আর্থার কে গাইড করছে, রুপকথার দেবমাতা (Godmother) সিন্ডেরেলাকে সাহায্য করছে, অথবা, ঝানু সার্জেন্ট কোন এক নতুন অনভিজ্ঞ পুলিশকে উপদেশ দিচ্ছে। নায়ক এবং মেন্টরের সম্পর্ক হলো সাহিত্য এবং চলচ্চিত্রের বিনোদনের সর্বোৎকৃষ্ট উৎস বা উপাদান।

‘মেন্টর’ (“Mentor”) শব্দটি আমাদের কাছে আসে দি ওডেসি (The Odyssey) থেকে। মেন্টর নামে একটি চরিত্র তরুণ নায়ক, টেলিমেকাস (Telemachus)-কে তার নায়কের ভ্রমণ (Hero’s Journey)-এ পরিচালিত করেছিল। বাস্তবিকই, এটা হলো দেবী এথেনা যে মেন্টরের প্রতিকৃতিতে টেলিমেকাসকে সাহায্য করে। মেন্টর প্রায়ই এক ঐশ্বরিক কন্ঠে কথা বলে এবং স্বর্গীয় জ্ঞান দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়। ভাল শিক্ষকরা এবং মেন্টররা আক্ষরিক অর্থে উৎসাহিত (enthused)। ‘এনথুজিয়াজম’ (“Enthusiasm”) গ্রীক এন থোজ (en theos) থেকে এসেছে, যার অর্থ ঈশ্বর-অনুপ্রাণিত (god-inspired), নিজের মাঝেই আছে এক ঈশ্বর, অথবা ঈশ্বর উপস্থিতিতে অনুপ্রাণিত।

    মনস্তাত্ত্বিক কার্যকলাপ:

মানুষের অন্তরাত্মা (psyche)-র ব্যবচ্ছেদে, মেন্টর আমিত্ব-কে প্রতিনিধিত্ব করে, আমাদের ভেতরের ঈশ্বরকে। ব্যক্তিত্বের এই দিকটা সবকিছুর সাথে জড়িত। এই উচ্চতর আমিত্ব হলো আরো জ্ঞানী, মহত্ত্বর, আমাদের ঈশ্বররুপ অংশ। যেমন, পিনোচ্চিও (Pinocchio)-র ডিজনী ভার্সান জিমিনি ক্রিকেট (Jiminy Cricket)। যার আমিত্ব বিবেক হিসেবে জীবনের পথে আমাদের পরিচালিত করেছে যখন কোন ব্লু ফেইরী (Blue Fairy) অথবা দয়ালু গেপেট্টো (gepetto) নেই সেখানে, যে আমাদের রক্ষা করতে পারে এবং বলতে পারে ভুল থেকে ঠিক কোনটা। [এই লিংকে উইকিপিডিয়া দেখুন, http://en.wikipedia.org/wiki/The_Fairy_with_Turquoise_Hair] ।

স্বপ্নে, রুপকথায়, পুরাণে অথবা চিত্রনাট্যে যেখানেই মেন্টর চরিত্র দেখা গেছে, সবসময়ই তারা নায়কের সর্বোচ্চ আকাঙ্খা পূরণে এগিয়ে গেছে। নায়কের যাত্রায় (Road of Heroes) নায়ক যা হয়ে উঠতে পারে, মেন্টর হলো তারই জন্য। মেন্টররা প্রায় পুরোনো কোন নায়ক হয়ে থাকে, যারা জীবনের প্রথমদিককার পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে। এখন সেই জ্ঞান ও প্রজ্ঞা নিয়ে এগুচ্ছেন।

পিতামাতার রুপকল্পের সাথেই মেন্টর আর্কিটাইপ খুব অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত। যেমন, “সিন্ডেরেলা” (“Cinderella”) গল্পের রুপকথার গডমাতাকে মেয়েটার মৃত মার রক্ষাকারী আত্মা বলে ব্যাখ্যা করা যেতে পারে। মারলিন পিতৃহীন তরুণ কিং আর্থার (King Arthur)-এর বিকল্প অভিভাবক। অনেক নায়কই মেন্টর খুঁজে বেড়ায়, কারণ তাদের নিজেদের পিতামাতারা তাদের আদর্শ হিসেবে যথেষ্ট নয়।

    নাটকীয় কার্যকলাপসমূহ:

শিক্ষাদান

শেখা যেমন নায়কের একটা গুরুত্বপূর্ণ কাজ, তেমনি শিক্ষা বা প্রশিক্ষণ দেয়া মেন্টরের একটা গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব। প্রশিক্ষণদাতা সার্জেন্ট, সৈন্যদলের প্রশিক্ষক, অধ্যাপক, দুর্গম প্রান্তরের বিজ্ঞ ওস্তাদ, পিতা-মাতা, পিতামহ-পিতামহী/মাতামহ-মাতামহী, বৃদ্ধ কঠোর বক্সিং প্রশিক্ষক এবং এইরকম সকলে যারা একজন নায়ককে তার কর্তব্য, নিয়মকানুন এবং পদ্ধতিসমূহ শেখায়, তারা মেন্টরের মৌল আদর্শরুপকে সুস্পষ্ট করে তোলে। অবশ্যই এই রকম শিক্ষা উভমুখী হতে পারে। যিনি শেখাচ্ছেন তিনি জানেন যে, তিনি তার ছাত্র থেকে ততটুকু শিখতে পারেন, যতটুকু ছাত্ররা তার কাছ থেকে শিখছে।

উপহার-দেয়া

উপহার দেয়াও এই মৌল আদর্শরুপ বা আর্কিটাইপের একটা গুরুত্বপূর্ণ কর্তব্য। ভ্লাদিমির প্রপ (Vladimir Propp) তার রাশান রুপকথার গল্পের বিশ্লেষণ, মরফোলজি অফ দা ফোকটেল (Morphology of the Folktale)-এ, এই কার্যকলাপকে “দাতা” বা সরবরাহকারী হিসেবে চিহ্নিত করে। সাধারণতঃ কিছু উপহার দিয়ে যে অস্থায়ীভাবে একজন নায়ককে সাহায্য করে। এই উপহার হতে পারে এক যাদুকরী অস্ত্র, একটি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য বা ইঙ্গিত, কোন যাদুকরী ঔষধ বা খাদ্য, অথবা জীবন রক্ষার্থে গুরুত্বপূর্ণ উপদেশ। রুপকথার গল্পে দাতা খুব সম্ভবতঃ একজন ডাইনীর বিড়াল (witch’s cat), যে ছোট্ট বালিকার দয়ায় কৃতার্থ হয়ে তাকে একটা তোয়ালে এবং একটি চিরুনী উপহার দেয়। পরবর্তীতে বালিকা যখন ডাইনীর দ্বারা তাড়িত হয়, তোয়ালেটা একটা বিক্ষুদ্ধ নদী এবং চিরুনীটি এক বনে রুপান্তরিত হয়ে ডাইনীর তার পশ্চাদ্ধাবনটাকে বাধাগ্রস্থ করে।

এইরকম উপহার দেয়ার উদাহরণ চলচ্চিত্রে প্রচুর – দি পাবলিক এনিমি (The Public Enemy)-তে ছোটখাট মাস্তান বা দাঙ্গাবাজ পুটিনোজ (Puttynose) জেমস ক্যাগনি (James Cagney)-কে তার প্রথম বন্ধুকটি দেয়া থেকে শুরু করে, স্টার ওয়ারস (Star Wars)-এ ওবি ওয়ান কেনোবি (Obi Wan Kenobi) ল্যুক স্কাইওয়াকার (Luke Skywalker)-কে তার পিতার আলোর তরবারী (light-saber) দেয়া পর্যন্ত, এইরকম অসংখ্য উদাহরণ। আজকাল উপহার হয়ে থাকে সম্ভবতঃ কোন কম্পিউটার কোড। যেমন, ড্রাগনের বাসস্থান (dragon’s lair)-এর কোন কম্পিউটার কোড। [Dragon’s Lair সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে উইকিপিডিয়া দেখুন।]

পুরাণে উপহার

পুরাণে মেন্টরের দানশীল কার্যকলাপের একটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। অনেক নায়কই তাদের মেন্টর, দেবতাদের কাছ থেকে উপহার পেয়ে থাকে। পেন্ডোরা (Pandora), যার নামের অর্থ “সব -উপহারলভ্য” (“all-gifted”), সেও উপহার দ্বারা আচ্ছাদিত হয়েছিল, যেখানে ছিল জিউস(Zeus)-এর প্রতিহিংসাতুল্য উপহারের বাক্স, যা তার খোলার কথা ছিল না। হারকিউলেস (Hercules)-এর মত নায়কেরা তাদের মেন্টর থেকে কিছু উপহার পেয়েছিল, কিন্তু গ্রীকদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি উপহার প্রাপ্য নায়ক ছিল পারসিয়াস (Perseus)।

পারসিয়াস

নায়কের গ্রীক আদর্শ পারসিয়াসের মধ্যে প্রকাশ পেয়েছে, পারসিয়াসকে রাক্ষস হত্যাকারী (monster-slayer) বলা হয়। তার আছে একজন সর্বগুণে গুণান্বিত নায়ক হবার স্বাতন্ত্র্য বা বিশিষ্টতা। সে ক্ষমতাধর উঁচু পর্যায় থেকে উপহারের বোঝায় এতই কূঁজো যে, কিভাবে এইসব নিয়ে সে হাঁটতে পারে তাই বিস্মিত হওয়ার মত। হারমিস (Hermes) এবং এথেনা (Athena)-র মেন্টরের সময়মত সহায়তায় সে পাখাযুক্ত স্যান্ডেল, অদৃশ্য হেলমেট, যাদুর তরবারী, কাস্তে এবং আয়না অর্জন করে। সে সাথে অর্জন করে মেডুসার মাথা (the head of Medusa), [যার বৈশিষ্ট্য হলো, এই মাথার দিকে যে তাকায়, সেই পাথরে পরিণত হয়।] এবং মাথা আবৃত করার যাদুর থলে। পারসিয়াস গল্পের চলচ্চিত্র রুপ, ক্ল্যাশ অফ দা টাইটানস (Clash of the Titans)-এ যেন এতসব কিছু অর্জন যথেষ্ট ছিল না। তাই পারসিয়াসকে উড়ন্ত ঘোড়া (pegasus)-ও দেয়া হয়।

বেশিরভাগ গল্পে, এ বিষয়টাকে অতিরজ্ঞন করা হতে পারে। কিন্তু পারসিয়াসের অর্থ হলো, নায়কের পরমোৎকর্ষের মূর্তরুপ। সুতরাং যাত্রাপথের অনুসন্ধানে তার মেন্টর দেবতার বর লাভই হবে যথোপযুক্ত।

উপহার অবশ্যই অর্জিত হওয়া উচিত

প্রপের রাশান রুপকথার বিশ্লেষণে দেখা যায় যে, সাধারণতঃ শুধুমাত্র তখনই দাতা চরিত্ররা নায়কদের যাদুকরী উপহার প্রদান করে, যখন নায়করা কোন ধরণের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়। এটা খুবই সাধারণ নিয়ম যে, উপহার পাওয়া অথবা দাতার সাহায্য লাভ, শেখার মাধ্যমে অথবা উৎসর্গ বা প্রতিশ্রুতির মাধ্যমে অবশ্যই অর্জন করতে হবে। রুপকথার নায়কেরা জীব-জন্তুর অথবা যাদুকরী ধরণের প্রাণী বা সৃষ্টির সহযোগিতা পেয়ে থাকে। শুরুতেই এই প্রাণীদের প্রতি সদয় হয়ে নায়করা তাদের সাথে খাদ্য ভাগাভাগি করে, অথবা প্রাণীদেরকে ক্ষতি থেকে রক্ষা করে। এসবের বদৌলতে তারা প্রাণীদের কাছ থেকে উপযুক্ত সহযোগিতা পায়।

লেখকের পরিভ্রমণ[লেখকের জন্য পৌরাণিক কাঠামো] নায়ক -ক্রিস্টোফার ভগ্লার

Advertisements

তথ্য কণিকা শামান সাত্ত্বিক
নিঃশব্দের মাঝে গড়ে উঠা শব্দে ডুবি ধ্যাণ মৌণতায়।

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: